My Cube, 1st Floor, Anuj Chambers, 24 Park Street, Kolkata, West Bengal, India. 700016 Kolkata IN
QRETTO
My Cube, 1st Floor, Anuj Chambers, 24 Park Street, Kolkata, West Bengal, India. Kolkata, IN
+918910438319 //d2pyicwmjx3wii.cloudfront.net/s/604094409fa5ed89d0a3f790/61e9246390141bde332731a2/20220120_134832_0000-480x480.png" soumi@qretto.com
6203f511d127db7c03177eb1 Upanyas Samagra 1 -2 / উপন্যাস সমগ্র ১- ২ //d2pyicwmjx3wii.cloudfront.net/s/604094409fa5ed89d0a3f790/6203f2fa36ab147c530b60dd/upanyash-samgra.jpg

মতি নন্দী (১০ জুলাই ১৯৩১-৩ জানুয়ারী ২০১০) ছিলেন বাংলার বিশিষ্ট ক্রীড়া সাংবাদিক ও স্মরণীয় সাহিত্যিক। তিনি স্কটিশচার্চ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক ও আই.এস.সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। এরপর অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীতে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে সাম্মানিক স্নাতক হন মণীন্দ্রচন্দ্র কলেজ থেকে। সাংবাদিকতা পুরষ্কারের প্রথম সংস্করণের গ্র্যান্ড ফাইনালে চিহ্নিত করার জন্য তিনি একটি চমকপ্রদ অনুষ্ঠানে জীবনকালের কৃতিত্বের পুরস্কার (২০০৮) ভূষিত হন। তাঁর সাংবাদিকতায় নতুন অনেক শব্দ প্রযুক্ত হয়েও তাঁর সাহিত্যের ভাষা ছিলো তা থেকে স্বতন্ত্র। জীবনের অনেক গভীর ও গোপন অনুভূতি তিনি এমন স্পষ্ট, তীক্ষ্ণ ও অনাসক্তভাবে ব্যক্ত করতেন, ইতিপূর্বে যা বিশেষ চোখে পড়েনি। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের মতে, এই দিক থেকে তিনি কিছুটা মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুসারী। পেয়েছেন আনন্দ পুরস্কার, সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার প্রভৃতি।

সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়ের মতে, মতি নন্দী 'লেখকদের লেখক'। লেখকের ব্যক্তিগত বিশ্বাস ছিলো, প্রবল আত্মপ্রত্যয় ও অনুশীলনের মাধ্যমে মানুষ প্রতিবন্ধকতা দূর করতে সক্ষম। এই বিশ্বাস তাঁর সাহিত্যে একটি মৌল স্বর হয়ে উঠেছে। তাঁর চরিত্ররা মুখ্যত কলকাতার মধ্যবিত্ত বাঙালী। তাঁর রচনায় মহানগরের বাহ্যিক ও আন্তরিক রূপ পরিবর্তন সুনিপুণভাবে চিত্রিত। সমাজের তথাকথিত অনগ্রসর শ্রেণীর মধ্যে অন্তর্নিহিত থাকে প্রতিভা। উপযুক্ত প্রশিক্ষণে তা স্ফুলিঙ্গ হয়ে জ্বলে উঠতে পারে। সেই আলোয় বিচ্ছুরিত হয় আরও অনেক কোনি- এ-ই "কোনি"র উপজীব্য। অদম্য মনোবল ও আপাত অসম্মানকে অতিক্রম করেই উন্নীত হওয়া যায় প্রকৃত আত্মমর্যাদাবোধে- 'ক্ষিদ্দা' চরিত্রের মধ্য দিয়ে তা-ই সুপ্রকাশিত। "বেহুলার ভেলা" উপন্যাসে প্রধান চরিত্র প্রমথের চোখ দিয়ে উত্তর কলকাতার বিভিন্ন গলি, তার আড্ডা, রোয়াক, প্রাত্যহিক যাপন, কলহ, বন্ধুত্বের বিশ্বস্ত ছবি ফুটে উঠেছে। "জলের ঘুর্ণি ও বকবক শব্দ"-এ স্বাধীনতা-উত্তর কলকাতার গলি থেকে রাজপথের নানা রঙের জীবনছবি, বিবিধ জটিলতা, বিশেষত উত্তর কলকাতার গলি-বাসিন্দাদের মধ্যে অবস্থিত যে পারস্পরিক শ্রেণী-বৈষম্য- এই সমস্তের মধ্য দিয়ে কলকাতার এক জীবনলিপি বর্ণিত। "দ্বাদশ ব্যক্তি" লেখকের আত্মজীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত। ১২তম ব্যক্তি এমন একজন যিনি অতিরিক্ত হয়ে থাকেন। দলের অন্য কারো অসুবিধেয় তাঁকে খেলতে হয়। অথচ শরীরচর্চা ও অনুশীলনে তাঁকে সমানভাবে প্রস্তুত থাকতে হয়। আবার একই সঙ্গে অস্তিত্বের সংগ্রামও তাঁকে করে যেতে হয়। লেখক ব্যক্তিজীবনে নির্বাচিত হয়েও খেলতে না পারার যন্ত্রণা, জয়-পরাজয়ে নিরুত্তর থাকা ইত্যাদির মধ্য দিয়ে এক প্রকার অবসন্ন হৃদয় ও আপাত নির্লিপ্তিবোধ শিল্পময় হয়ে উঠেছে। 'নক্ষত্রের রাত', 'নায়কের প্রবেশ ও প্রস্থান', 'বারান্দা', 'করুণাবশত', 'বাওবাব', 'সবাই যাচ্ছে', 'ছোটবাবু', 'দ্বিতীয় ইনিংসের পর', 'দূরদৃষ্টি', 'সাদা খাম' ইত্যাদি উপন্যাসে এই গ্রন্থ মতি নন্দীর উপন্যাসের একটি সামগ্রিক রূপ দেয়।

SKU-DIGHLELGF8
in stockINR 998
Retail Maharaj
1 1
Upanyas Samagra 1 -2 / উপন্যাস সমগ্র ১- ২

Upanyas Samagra 1 -2 / উপন্যাস সমগ্র ১- ২

₹998


Features
  • PUBLISHER - DEEP PRAKASHAN
  • NAME OF THE AUTHOR - MOTI NANDI
  • LANGUAGE - BENGALI
  • BINDING - PAPERBACK
VARIANTSELLERPRICEQUANTITY

Description of product

মতি নন্দী (১০ জুলাই ১৯৩১-৩ জানুয়ারী ২০১০) ছিলেন বাংলার বিশিষ্ট ক্রীড়া সাংবাদিক ও স্মরণীয় সাহিত্যিক। তিনি স্কটিশচার্চ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক ও আই.এস.সি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। এরপর অটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং-এ ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীতে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে সাম্মানিক স্নাতক হন মণীন্দ্রচন্দ্র কলেজ থেকে। সাংবাদিকতা পুরষ্কারের প্রথম সংস্করণের গ্র্যান্ড ফাইনালে চিহ্নিত করার জন্য তিনি একটি চমকপ্রদ অনুষ্ঠানে জীবনকালের কৃতিত্বের পুরস্কার (২০০৮) ভূষিত হন। তাঁর সাংবাদিকতায় নতুন অনেক শব্দ প্রযুক্ত হয়েও তাঁর সাহিত্যের ভাষা ছিলো তা থেকে স্বতন্ত্র। জীবনের অনেক গভীর ও গোপন অনুভূতি তিনি এমন স্পষ্ট, তীক্ষ্ণ ও অনাসক্তভাবে ব্যক্ত করতেন, ইতিপূর্বে যা বিশেষ চোখে পড়েনি। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের মতে, এই দিক থেকে তিনি কিছুটা মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুসারী। পেয়েছেন আনন্দ পুরস্কার, সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার প্রভৃতি।

সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়ের মতে, মতি নন্দী 'লেখকদের লেখক'। লেখকের ব্যক্তিগত বিশ্বাস ছিলো, প্রবল আত্মপ্রত্যয় ও অনুশীলনের মাধ্যমে মানুষ প্রতিবন্ধকতা দূর করতে সক্ষম। এই বিশ্বাস তাঁর সাহিত্যে একটি মৌল স্বর হয়ে উঠেছে। তাঁর চরিত্ররা মুখ্যত কলকাতার মধ্যবিত্ত বাঙালী। তাঁর রচনায় মহানগরের বাহ্যিক ও আন্তরিক রূপ পরিবর্তন সুনিপুণভাবে চিত্রিত। সমাজের তথাকথিত অনগ্রসর শ্রেণীর মধ্যে অন্তর্নিহিত থাকে প্রতিভা। উপযুক্ত প্রশিক্ষণে তা স্ফুলিঙ্গ হয়ে জ্বলে উঠতে পারে। সেই আলোয় বিচ্ছুরিত হয় আরও অনেক কোনি- এ-ই "কোনি"র উপজীব্য। অদম্য মনোবল ও আপাত অসম্মানকে অতিক্রম করেই উন্নীত হওয়া যায় প্রকৃত আত্মমর্যাদাবোধে- 'ক্ষিদ্দা' চরিত্রের মধ্য দিয়ে তা-ই সুপ্রকাশিত। "বেহুলার ভেলা" উপন্যাসে প্রধান চরিত্র প্রমথের চোখ দিয়ে উত্তর কলকাতার বিভিন্ন গলি, তার আড্ডা, রোয়াক, প্রাত্যহিক যাপন, কলহ, বন্ধুত্বের বিশ্বস্ত ছবি ফুটে উঠেছে। "জলের ঘুর্ণি ও বকবক শব্দ"-এ স্বাধীনতা-উত্তর কলকাতার গলি থেকে রাজপথের নানা রঙের জীবনছবি, বিবিধ জটিলতা, বিশেষত উত্তর কলকাতার গলি-বাসিন্দাদের মধ্যে অবস্থিত যে পারস্পরিক শ্রেণী-বৈষম্য- এই সমস্তের মধ্য দিয়ে কলকাতার এক জীবনলিপি বর্ণিত। "দ্বাদশ ব্যক্তি" লেখকের আত্মজীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত। ১২তম ব্যক্তি এমন একজন যিনি অতিরিক্ত হয়ে থাকেন। দলের অন্য কারো অসুবিধেয় তাঁকে খেলতে হয়। অথচ শরীরচর্চা ও অনুশীলনে তাঁকে সমানভাবে প্রস্তুত থাকতে হয়। আবার একই সঙ্গে অস্তিত্বের সংগ্রামও তাঁকে করে যেতে হয়। লেখক ব্যক্তিজীবনে নির্বাচিত হয়েও খেলতে না পারার যন্ত্রণা, জয়-পরাজয়ে নিরুত্তর থাকা ইত্যাদির মধ্য দিয়ে এক প্রকার অবসন্ন হৃদয় ও আপাত নির্লিপ্তিবোধ শিল্পময় হয়ে উঠেছে। 'নক্ষত্রের রাত', 'নায়কের প্রবেশ ও প্রস্থান', 'বারান্দা', 'করুণাবশত', 'বাওবাব', 'সবাই যাচ্ছে', 'ছোটবাবু', 'দ্বিতীয় ইনিংসের পর', 'দূরদৃষ্টি', 'সাদা খাম' ইত্যাদি উপন্যাসে এই গ্রন্থ মতি নন্দীর উপন্যাসের একটি সামগ্রিক রূপ দেয়।

User reviews

  0/5